স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে গভীর ভালোবাসা সৃষ্টির তদবীর

স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে গভীর ভালোবাসা সৃষ্টির তদবীর

জীবনে চলার পথে  স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে বিভিন্ন কারণে ছোটো খাটো বিতর্ক হয়ে থাকে ,ফলে একে অপরের প্রতি রাগ করে বসে । কখনো স্বামী রাগ করে আবার কখনো স্ত্রী রাগ করে । স্বামী রাগ করলে স্ত্রী আর স্ত্রী রাগ করলে স্বামী নিম্নের আমল গুলি করবে ।

১- স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে যদি মিল মহব্বত কমে যায় বা উভয়ের মাঝে বনিবনা না হয় বা তাদের একজন অপর জনের ওপর অসন্তুষ্ট হয়; তখন আল্লাহ তাআলার পবিত্র গুণবাচক নাম يا ودود  (ইয়া ওয়াদুদু)’ ১০০১ (এক হাজার এক) বার পাঠ করে কোনো মিষ্টি  খাবার-দ্রব্যের মাঝে ফুঁ দিয়ে খাওয়ালে, আল্লাহর রহমতে উভয়ের মধ্যে মিল-মহব্বত ও আন্তরিকতা সৃষ্টি হবে।

২- স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে যদি মিল মহব্বত কমে যায় বা উভয়ের মাঝে বনিবনা না হয় বা তাদের একজন অপর জনের ওপর অসন্তুষ্ট হয় তাহলে , পবিত্র কুরানের  এই আয়াত,  وَأَلْقَيْتُ عَلَيْكَ مَحَبَّةً مني وَلِتُصْنَعَ عَلَىٰ عَيْنِي  (ও আলকাইতু আলাইকা মুহাব্বাতাম মিন্নি ও লি তুসনিয়া আলা আইনী ) (সুরা তহা-৩৯)  স্বামী রাগ করলে স্ত্রী স্বামীর মুখের দিকে তাকিয়ে পড়তে থাকবে । (যখন যখন স্বামী স্বামী সামনে আসবে তখন তখন স্ত্রী এই আমল করবে ) ।আর স্ত্রী রাগ করলে  স্বামী স্ত্রীর মুখের দিকে তাকিয়ে পড়তে থাকবে । (যখন যখন স্ত্রী  সামনে আসবে তখন তখন স্বামী এই আমল করবে ) ।  আল্লাহর রহমাতে দুজনে মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি হবে ।

৩- স্বামী রাগ করলে স্ত্রী আর স্ত্রী রাগ করলে স্বামী নিম্নের আমলটি করবে,  আমলটি হল ,فَسَيَكْفِيكَهُمُ اللَّهُ ۚ وَهُوَ السَّمِيعُ الْعَلِيمُ  ’ফাসাইয়াকফিকাহুমুল্লাহু ও হুয়াস সামিউল আলিম” (সুরা বাকারা-১৩৭) ফজরের নামাজ পর ১০০ বার আর এশার নামাজের পর ১০০ বার পড়ে আল্লাহর কাছে দুয়া করতে হবে । ইন শা আল্লাহ দুজনের মধ্যে মহাব্বাত গভীর হবে ।

বিঃ দ্রঃ-  আমলের প্রথমে ৩ বার দরুদ শরিফ আর শেষে ৩ বার দরুদ শরিফ পড়ে নিবেন ।

Spread the love

Leave a Comment